জাতীয় সংগীত

রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর

আমার সোনার বাংলা আমি তোমায় ভালোবাসি

চিরদিন তোমার আকাশ,তোমার বাতাস ,আমার প্রাণে বাজায় বাঁশি ।।

ও মা ,ফাগুনে তোর আমের বনে ঘ্রাণে পাগল করে ,

মরি হায়,হায় রে-

ও মা, অঘ্রাণে তোর ভরা ক্ষেতে আমি কী দেখেছি মধুর হাসি ।।

কী শোভা, কী ছায়া গো , কী স্নেহ,কী মায়া গো-

কী আঁচল বিছায়েছ বটের মূলে ,নদীর কূলে কূলে ।

মা, তোর মুখের বাণী আমার কানে লাগে সুধার মতো ,

মরি হায়,হায় রে-

মা , তোর বদনখানি মলিন হলে , ও মা, আমি নয়নজলে ভাসি  ।।

আমার সোনার বাংলা আমি তোমায় ভালোবাসি

চিরদিন তোমার আকাশ , তোমার বাতাস ,আমার প্রাণে বাজায় বাঁশি ।।

জাতীয় সংগীত

জাতীয় সংগীত

Amar Sonar Bangla Ami Tomay valobasi

chirodin tomar akash,tomar batas, amar prane bazay bashi.

o ma, fagune tor amer bone ghrane pagol kore,

mori hay,hay re

o ma, oghrane tor bhora khete ami ki dakeci modhur hasi.

ki shobha,ki chaya go , ki snaho, ki mayago,

ki achol bichayeco boter mule, nodir kule kule.

ma, tor mukher bani amr kane lage sudhar moto

mori hay,hay re

ma, tor bodonkhani molin hole , o ma, ami noyon jolevasi.

Amar Sonar Bangla Ami Tomay valobasi

chirodin tomar akash,tomar batas ,amar prane bazay bashi.

গানটির সুরে

আমার সোনার বাংলা  গানটি রচিত হয়েছিল ১৯০৫ সালের বঙ্গভঙ্গ আন্দোলনের পরিপ্রেক্ষিতে । গানটির পাণ্ডলিপি পাওয়া যায় নি , তাই এর সঠিক রচনাকাল ও জানা যায়নি । সত্যেন রায়ের রচনা থেকে জানা যায় ১৯০৫ সালের ৭ আগস্ট কলকাতার  টাউন হলে আয়োজিত একটি প্রতিবাদ সভায় এই গানটি প্রথম গীত হয়েছিল । এই বছরই ৭ সেপ্টেম্বর ( ১৩১২ বঙ্গাব্দের ২২ ভাদ্র ) সঞ্জীবনী  পত্রিকায় রবীন্দ্রনাথের স্বাক্ষরে গানটি  মুদ্রিত  হয়  । এই বছর বঙ্গদর্শন পত্রিকার আশ্বিন সংখ্যাতেও গানটি মুদ্রিত হয়েছিল । তবে ৭ আগস্ট উক্ত সভায় এই গানটি গীত হওয়ার কোনো প্রমাণ পাওয়া যায় না । বিশিষ্ট রবীন্দ্রজীবনীকার প্রশান্তকুমার পালের মতে , ১৯০৫ খ্রিস্টাব্দের ২৫ আগস্ট কলকাতার টাউন হলে অবস্থা ও ব্যবস্থা  প্রথম গীত হয়েছিল ।

আমার সোনার বাংলা গানটি রচিত হয়েছিল শিলাইদহের ডাক- পিয়ন গগন হরকরা রচিত আমি কোথায় পাব তারে আমার মনের মানুষ যারে…গানটি সুরের অনুষঙ্গে………।

Pin It on Pinterest

Share This
My title page contents